অধিনায়কত্ব পেয়ে রোমাঞ্চিত মাহমুদউল্লাহ, তবে...

ক্রিকেট দুনিয়া 30 Jan 2018 at 4:39pm 1,156
Googleplus Pint
অধিনায়কত্ব পেয়ে রোমাঞ্চিত মাহমুদউল্লাহ, তবে...

বাংলাদেশের দশম টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে বুধবার অভিষেক হতে যাচ্ছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের।

প্রত্যেক ক্রিকেটারের স্বপ্ন থাকে দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার। বিশেষ করে টেস্ট ব্লেজার পরে মাঠে টস করতে নামার রোমাঞ্চটাই অন্যরকম। সবকিছু ঠিক থাকলে মাহমুদউল্লাহ বুধবার প্রথমবারের মতো এমন রোমাঞ্চের স্বাদ পেতে যাচ্ছেন। দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় মাহমুদউল্লাহ বেশ রোমাঞ্চিত। তবে মনের কোণে লুকিয়ে আছে খানিকটা দ্বিধা! এভাবে কি অধিনায়ক হতে চেয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ?

ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ফিল্ডিং করতে গিয়ে বাঁ হাতের আঙুলে চোট পান দ্বিতীয়বারের মতো টেস্ট অধিনায়কত্ব পাওয়া সাকিব আল হাসান। আঙুলে লেগেছে ১০টি সেলাই। মাঠের বাইরে থাকতে হবে কমপক্ষে এক সপ্তাহ। এ কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে নেই সাকিব আল হাসান। সহ-অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কাঁধে টেস্ট অধিনায়কত্বের দায়িত্ব।

এভাবে তার কাঁধে দায়িত্ব আসবে, সেটা চাননি মাহমুদউল্লাহ। মঙ্গলবার ম্যাচ-পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে ভারপ্রাপ্ত টেস্ট অধিনায়ক বলেছেন, ‘যেভাবে পেয়েছি সেভাবে পেতে চাইনি অবশ্যই। তবে প্রত্যেক ক্রিকেটারেরই স্বপ্ন থাকে তার দলকে নেতৃত্ব দেওয়া, দেশকে লিড করা। সেদিক থেকে চিন্তা করলে অবশ্যই আমি রোমাঞ্চিত।’

অধিনায়কত্ব প্রত্যাশিত না হলেও নতুন দায়িত্ব পালনে বেশ আত্মবিশ্বাসী মাহমুদউল্লাহ। দলের প্রত্যেককে একই সুতোয় গেঁথে দলকে সর্বোচ্চ সাফল্য দিতে বদ্ধপরিকর এই অলরাউন্ডার। ড্রেসিং রুমে মাহমুদউল্লাহকে সবাই চেনে বেশ বিনয়ী মানুষ হিসেবে। স্পষ্টভাষী মাহমুদউল্লাহ সব সময় দুষ্টুমিতে মাতিয়ে রাখেন ড্রেসিং রুম। এমন ‘দুষ্টু’ অধিনায়ক কি পারবেন দলের সবাইকে এক পথের অনুসারী করে তুলতে?



মাহমুদউল্লাহর সোজাসাপটা জবাব, ‘আমি যখন আমার ভূমিকায় থাকব, তখন কোনো কিছুতে আমি ছাড় দিব না। যেভাবেই হোক দলকে সাপোর্ট করব। সেটা একটু কড়া হয়েও হোক বা ভালোভাবে অনুপ্রেরণা দিয়েও হোক; সব দিক থেকেই চেষ্টা করব। মূল কথা হচ্ছে, এটা বাংলাদেশ ক্রিকেট। বাংলাদেশ দলকে ভালো কিছু দিতে হবে। এটাই আমাদের দায়িত্ব, এটাই আমাদের কর্তব্য।’

ঘরোয়া ক্রিকেটে অধিনায়কত্বে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। তাই সাকিবের পরিবর্তে তার কাঁধেই টিম বাংলাদেশের দায়িত্ব। মাঠের সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে প্রয়োজন বিচক্ষণতা। সফল অধিনায়ক সব সময় চিন্তা করেন ‘আউট অফ দ্য বক্স।’ নেতৃত্বগুণে সফল হতে প্রত্যেক অধিনায়কের থাকে নিজস্ব স্টাইল কিংবা নিজস্ব সকীয়তা। মাহমুদউল্লাহরও রয়েছে নিজস্ব স্টাইল। ঠান্ডা মেজাজে পরিস্থিতি সামলে নেওয়ার অসাধারণ ক্ষমতা তার। আজ নিজেও বলেছেন ঠান্ডা মেজাজই তার অধিনায়কত্বের সবচেয়ে বড় প্লাস-পয়েন্ট।

‘অধিনায়কত্বের বড় একটা কাজ হচ্ছে মাঠের ভিতরে অনেক সিদ্ধান্ত নিতে হয়। আপনি যদি নিজে ঠান্ডা মেজাজে না থাকেন, তাহলে সিদ্ধান্তগুলো এদিক-সেদিক হয়ে যেতে পারে। আপনি যদি ঠান্ডা মেজাজে থাকেন, তাহলে আপনার সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হবে। এটা আমি সব সময় করি। আমি যখন ঘরোয়া ক্রিকেটেও অধিনায়কত্ব করি, তখন যতটুকু পারি ঠান্ডা মেজাজে থাকার। আমার মনে হয় এই জিনিসটা সিদ্ধান্ত নিতে অনেক সাহায্য করে’- বলেন মাহমুদউল্লাহ।

ঘরোয়া ক্রিকেটে অধিনায়কত্বে একাধিক সাফল্য আছে মাহমুদউল্লাহর নামের পাশে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট, লিস্ট ‘এ’ টুর্নামেন্ট এবং বিপিএলেও তার অধিনায়কত্ব পেয়েছে লেটার মার্ক। এবার বড় মঞ্চে মাহমুদউল্লাহ দলকে একই সাফল্য দিতে পারেন কি না, সেটাই দেখার।

তথ্যসূত্রঃ রাইজিংবিডি

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 29 - Rating 4 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)