যে ৬ লক্ষণে বুঝা যাবে ফুসফুসের সমস্যা

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 29 Jan 2018 at 11:38am 602
Googleplus Pint
যে ৬ লক্ষণে বুঝা যাবে ফুসফুসের সমস্যা

কাশি লেগে থাকা, সিঁড়িতে আরোহণের সময় শ্বাসকষ্ট হওয়া এবং কাশির সঙ্গে রক্ত আসা- ফুসফুসের বড় ও ছোট সমস্যার ইঙ্গিত দিতে পারে। এ প্রতিবেদনে এমন কিছু কথা আলোচনা করা হয়েছে, যা সম্পর্কে অবহিত হয়ে আপনি আপনার ফুসফুসকে সুস্থ রাখতে পারেন।

* আপনার পায়ে ফোলা ও ব্যথা আছে বা স্পর্শ করলে ব্যথা অনুভূত হয়
প্রথমত আপনার মনে হতে পারে এটি আপনার ফুসফুসের কোনো ক্ষতি করবে না অথবা ফুসফুসের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। লেহি হসপিটাল অ্যান্ড মেডিক্যাল সেন্টারের রেডিয়েশন অনকোলজির চেয়ারম্যান অ্যান্ড্রিয়া মেকি বলেন, ‘কিন্তু এটি পায়ের রক্ত জমাটবদ্ধতা ডিপ ভেইন থ্রম্বসিসের লক্ষণ হতে পারে।’ তিনি লাং অ্যাসোসিয়েশন’স লাং ক্যানসার এক্সপার্ট মেডিক্যাল অ্যাডভাইজারি প্যানেলেও চাকরি করেন এবং এটির লাং ফোর্স ইনিশিয়েটিভে কাজ করেন নারীদের ফুসফুস ক্যানসার সম্পর্কে সচেতন করতে ও শিক্ষা দিতে। এখানকার ঝুঁকি হচ্ছে, এই রক্ত জমাটবদ্ধতা বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে এবং ফুসফুসে প্রবেশ করতে পারে- এ অবস্থাকে বলা হয় পালমোনারি এম্বলিজম। ফুসফুসে রক্তের জমাটবদ্ধতা রক্তপ্রবাহে বাধা দিতে পারে এবং মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। অন্যান্য লক্ষণগুলো হচ্ছে শ্বাসকষ্ট, শ্বাস নিতে সমস্যা এবং বুকব্যথা। অনেকক্ষেত্রে আপনার ফুসফুসের উপসর্গ নাও থাকতে পারে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মেডিক্যাল সেবা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ: যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হার্ট, লাং অ্যান্ড ব্লাড ইনস্টিটিউটের রিপোর্ট অনুসারে, পালমোনারি এম্বলিজমে আক্রান্ত ৩০ শতাংশ রোগী মারা যায়।

* আপনার শ্বাসকষ্ট হয়
আপনার মধ্যে কিছু সমস্যার কারণ হতে পারে কোল্ড বা ফ্লু। ডা. মেকি বলেন, ‘যদি আপনার ফুসফুস সমস্যা থাকে অথবা যদি আপনি প্রচুর মানসিক চাপে থাকেন কিংবা যদি আপনি জীবনের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট মোকাবেলা করেন, তাহলে কোল্ডের সর্বোচ্চ পর্যায়ে আপনার ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকবে।’ সংকটাপন্ন বা দুর্বল ফুসফুস কার্যক্রমের কারণে ব্যাকটেরিয়াল নিউমোনিয়া অথবা ব্রংকাইটিস হতে পারে। সমস্যা নির্ণয় করতে মেডিক্যাল পরীক্ষা এবং রিকভার করতে অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োজন হবে।

* আপনি সিঁড়ির পরিবর্তে লিফট ব্যবহার করা শুরু করেছেন
যদি আপনার স্বাভাবিক কার্যক্রমের সময় শ্বাস নিতে সমস্যা বা শ্বাসকষ্ট হয় এবং দীর্ঘস্থায়ী কাশি থাকে (ঠান্ডা লাগা ছাড়া), আপনার ডাক্তার সিওপিডি বা ক্রনিক অবস্ট্রাক্টিভ পালমোনারি ডিজিজের জন্য টেস্ট করতে পারেন। আমেরিকান লাং অ্যাসোসিয়েশনের মতে, এটি যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর তৃতীয় প্রধান কারণ। যুক্তরাষ্ট্রে ১১ মিলিয়ন লোকের মধ্যে এটি নির্ণীত হলেও অনেকেরই এটি সম্পর্কে ধারণা নেই, বিশেষ করে নারীদের। এছাড়া অনেক লোক মনে করে যে বয়স্কতার কারণে হাঁটার ফলে শ্বাসকষ্ট হয়, কিন্তু এটি বয়স্ক হওয়ার স্বাভাবিক সংকেত নয়।

* আপনার শ্বাসকার্যের সময় বুকে শব্দ হয়
ডা. মেকি বলেন, ‘আমরা রোগীদের বলি যে যদি আপনি গভীর শ্বাস নিতে না পারেন, আপনার ডাক্তার দেখানো প্রয়োজন হবে।’ ডাক্তাররা সম্ভাব্য রোগ যেমন- সিওপিডি বা রক্তস্বল্পতা নির্ণয় করতে টেস্ট নিতে পারে (সাধারণ রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে নির্ণীত হতে পারে)। ইউরোপিয়ান রেসপিরেটরি রিভিউর গবেষণা অনুসারে, শ্বাসকার্যের সময় বুকে হুইসেল দেওয়ার মতো বা সাঁইসাঁই শব্দ হওয়ার আরেকটি সম্ভাব্য কারণ হচ্ছে বার্ধক্যজনিত অ্যাজমা, যা শৈশবে ডেভেলপ হওয়া অ্যাজমার চেয়ে বেশি তীব্র। প্রকৃতপক্ষে, ৬৫ উর্ধ্ব ১০ শতাংশ লোকের এটি হতে পারে এবং ক্রনিক সাইনাসাইটিস বা দীর্ঘস্থায়ী সাইনাস প্রদাহের মতো অবস্থার কারণে এর তীব্রতা বেড়ে যেতে পারে।

* আপনার কোনো উপসর্গ নেই
ফুসফুস ক্যানসার হচ্ছে এমন একটি রোগ যা আপনি কখনো কামনা করবেন না। ডা. মেকি বলেন, ‘কিন্তু ভীতিকর খবর হচ্ছে, প্রথম পর্যায়ে ফুসফুস ক্যানসারের উপসর্গ বিরল বা উপসর্গ দেখা দেয় না বললেই চলে। আমরা সাধারণত হঠাৎ করে প্রথম পর্যায়ের ফুসফুস ক্যানসার খুঁজে পাই।’ যখন একজন রোগীর অন্য কোনো শারীরিক সমস্যার কারণে বুক বা মেরুদণ্ডের এক্স-রে প্রয়োজন হয়, তখন এ ক্যানসার ধরা পড়ে। সময়ের বিবর্তনে কখনো কখনো হঠাৎ করে অন্যান্য উপসর্গ যেমন- পিঠ ব্যথা, মাথাব্যথা কিংবা অত্যধিক ক্লান্তি দেখা দিতে পারে- প্রায়ক্ষেত্রে এসব শরীরের অন্যস্থানে ক্যানসার ছড়িয়ে পড়ার লক্ষণ হতে পারে। এ কারণে যদি আপনি ফুসফুস ক্যানসারের উচ্চ ঝুঁকিতে (আপনার বয়স ৫৫ উর্ধ্ব হলে এবং ধূমপানের ৩০ বছরের ইতিহাস থাকলে), আপনার লো-ডোজ সিটি স্ক্যানের মাধ্যমে স্ক্রিনিং করানো প্রয়োজন।

* আপনার কাশির সঙ্গে রক্ত আসে
এই ভীতিপ্রদ লক্ষণটি আপনাকে অবিলম্বে সোজা ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাবে। রক্ত উজ্জ্বল লাল বা অধিক বাদামী এবং মিউকাসযুক্ত হতে পারে। ডা. মেকি বলেন, ‘এটি ফুসফুস ক্যানসারের লক্ষণ হলেও এর মানে এটা নয় যে আপনার ফুসফুস ক্যানসার আছে। মায়ো ক্লিনিক অনুসারে, ‘অন্য অনেক কারণে কাশির সঙ্গে রক্ত আসতে পারে যেমন- উদরের পেশিতে টান পড়া, দীর্ঘস্থায়ী ব্রংকাইটিস অথবা এমফিসেমা।’ যে কারণেই কাশির সঙ্গে রক্ত আসুক না কেন, একে অবহেলা করা উচিত নয় এবং ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন।

যেভাবে আপনার ফুসফুস সুস্থ রাখবেন
ডা. মেকি বলেন, ‘আপনি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ যে কাজটি করতে পারেন তা হচ্ছে তামাক বা ধূমপান বর্জন করা। লোকদের বোধগম্য হওয়া প্রয়োজন যে, ফুসফুস হচ্ছে ফিল্টার যা শরীরের অন্যান্য অংশে অক্সিজেন সরবরাহ করে এবং ক্যানসার সৃষ্টিকারী কার্সিনোজেন ও অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর ভগ্নাবশেষ দূর করতে সাহায্য করে।’ এসব ফিল্টার যেন বাধাগ্রস্ত না হয় ও সুস্থ থাকে সেদিকে খেয়াল রাখুন। ভালো মতন চিকিৎসা করুন।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 14 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)