বাড়িতেই বানাবেন রসগোল্লা? জেনে নিন সহজ নিয়ম

রেসিপি টিপস 16th Nov 17 at 7:37am 293
Googleplus Pint
বাড়িতেই বানাবেন রসগোল্লা? জেনে নিন সহজ নিয়ম

আজ ঘরে ঘরে বাঙালির মুগ্ধ রসবোধে অবিরত রসগোল্লার চর্চা। যদি কেউ বাড়িতেই রসগোল্লা বানানোর পরিকল্পনা করেন তাহলে জেনে নিন রসগোল্লা তৈরির সহজ নিয়ম

▶যা যা লাগবে:

চিনি, দুধ, লেবু অথবা টকদই, পানি, ছাঁকনি এবং পাত্র।

▶যেভাবে বানাবেন:

ওভেনে একটি প্যান বসান। তাতে লিটারখানেক দুধ ঢেলে দিন। চুলা জ্বালিয় দুধ ফোটানো শুরু করুন। দুধ যত ভাল মানের হবে, ছানা তত খোলতাই হবে। এবার একটি বাটিতে টকদই রাখুন। এক লিটার দুধের জন্য মোটামুটি পোয়া খানেক (২৫০ গ্রাম) মতো টকদই-ই যথেষ্ট।

দুধ ফোটা শুরু হলে টক দইটি ঢেলে দিন। এক্ষেত্রে কেউ লেবু বা ভিনিগারও ব্যবহার করতে পারেন। তবে তাতে রসগোল্লাতে গন্ধ থেকে যাওয়ার ক্ষীণ সম্ভাবনা থাকে।

টক দইয়ের ক্ষেত্রে তাও থাকবে না। ফুটন্ত দুধেটক দই পড়া মাত্র ছানা কাটতে শুরু করবে। চামচ বা খুন্তির সাহায্যে ভাল করে নেড়ে নিন। একটু অপেক্ষা করুন। পুরো পানি কেটে গেলে বুঝবেন ছানা তৈরি হয়ে গেছে। মনে রাখবেন রসগোল্লার ছানা বেশিক্ষণ ওভেনে রাখা যাবে না।

এবার পুরো বস্তুটি ছাঁকনিতে ঢেলে দিন। পরিচ্ছন্ন কাপড় ব্যবহার করতে পারেন ছাঁকনি হিসেবে। পানি আর ছানা আলাদা হয়ে যাবে। ব্যস ছানা তৈরি হয়ে গেল। তুলে একটি থালায় রাখুন। অথবা কাপড়েই ঝুলিয়ে রাখুন, যাতে পানি ঝরতে থাকে এবং ধীরে ধীরে ঠাণ্ডা হয়।

কিন্তু ছানা ঠাণ্ডা পানিতে ধোবেন না। মনে রাখবেন, পানি ঢুকলে স্পঞ্জি রসগোল্লা তৈরি হবে। তবে চিরায়ত রসগোল্লা তৈরির জন্য ঠাণ্ডা পানি না দেওয়াই ভাল। থালায় রাখলে বা কাপড়ে ঝুলিয়ে রাখলে বাকি যে পানি থাকবে সেটাও ঝরে যাবে।

রসগোল্লার গোল্লার জন্য ছানা লাগবে তা তৈরি। এবার রসের পালা। এখানেও যথেষ্ট বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন। নয়তো সবটাই জোলো হয়ে যাবে। প্রথমে একটি পাত্রে পানি নিন। তাতে চিনি দিন। মোটামুটি পাঁচ কাপ পানির জন্য আড়াই কাপ চিনি দরকার।

এবার ফোটানো শুরু করুন। মাঝে মধ্যে চামচ দিয়ে নাড়তে থাকুন। অনেকে রসে এলাচের দানা দেন। অনেকে এই ফ্লেভার পছন্দ করেন। যদি আপনিও পছন্দ করেন তবে তা দিতেই পারেন। এই সময় আঁচ বাড়িয়ে নেবেন। মাথায় রাখবেন, রস যেন খুব ঘন না হয়ে যায়।

এইবার রসগোল্লা তৈরির সবথেকে শক্ত পর্ব। এতক্ষণে ছানা থেকে সব পানি ঝরে গিয়েছে। সেটিকে থালায় তুলুন। এবার এক চা-চামচ মতো সুজি ও চিনি ওই ছানার সঙ্গে ভাল করে মাখিয়ে ফেলুন। অনেকে সুজির বদলে ময়দাও দেন। ছানা ঝুরঝুরে অবস্থায় থাকে। ঠাণ্ডা পানিতে ধুলে ছানা শক্ত হয়ে যেত। কিন্তু তাতে রসগোল্লাও শক্ত হত।

এবার ওই মিশ্রণটাই ভাল করে মাখাতে থাকুন। অনেকটা ময়দা মাখানোর কায়দায়। অনেকেই হাতের তেলো দিয়ে জোরে জোরে ঘষতে থাকেন। তার দরকার নেই। সাধারণভাবেই মিনিট চারেক মাখানোর পরই মণ্ড তৈরি হয়ে যাবে। এবার সেগুলো থেকেই ছোট ছোট অংশ কেটে নাড়ুর মতো বল তৈরি করুন।

ওভেনের উপর রস তো বসানোই ছিল। ফুটন্ত সেই রসে এবার বলগুলি ছাড়তে থাকুন। এই সময় ওভেনের আঁচ যেন বাড়ানো থাকে, তা মাথায় রাখবেন। আর পাত্রের মাথায় একটা ঢাকনা দিয়ে দিন। পাত্রের ভিতর তৈরি হতে থাকুক রসগোল্লা। মিনিট সাত থেকে দশ পরে ঢাকনা খুললেই দেখবেন, ছানার বলগুলো রসে টইটম্বুর হয়ে গিয়েছে। এবার একটু নাড়িয়ে চাড়িয়ে, উপরের পিঠগুলো ঘুরিয়ে দিয়ে ফের ঢাকা দিন।

আঁচটা এইসময় একটু কমিয়ে দেবেন। ঢিমে আঁচে আরও বেশকিছুক্ষণ, প্রায় মিনিট পনেরো কুড়ি রেখে দিন। এবার খুলে দেখুন, তৈরি আপনার রসগোল্লা। রসের মধ্যে থেকে একটা গোল্লা তুলে এক গ্লাসে জলে ফেল দেখুন। যদি ডুবে যায় তবে আপনার রসগোল্লা তৈরি।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 19 - Rating 4 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)