কাঁচা পেঁপের ঔষধি গুণ

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 12th Nov 17 at 2:30pm 227
Googleplus Pint
কাঁচা পেঁপের ঔষধি গুণ

পেঁপে পরিচিত একটি ফল। পুষ্টিগুণের দিক দিয়ে পেঁপে অন্য ফলের তুলনায় অনেক বেশি পুষ্টিকর। পাকা পেঁপে ভিটামিন ‘এ’ এবং ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ। কাঁচা পেঁপেতেও ভিটামিন ‘এ’, ভিটামিন ‘বি’ এবং ভিটামিন ‘সি’ আছে। এ ছাড়া কাঁচা বা পাকা পেঁপেতে লৌহ ও ক্যালসিয়াম আছে। হজমে সহায়ক পেঁপে কাঁচা ও পাকা উভয় অবস্থায়ই শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

আমাশয় ও পেটে সমস্যা থাকলে কাঁচা পেঁপের আঠা ৩০ ফোঁটা ও ১ চামচ চুনের পানি মিশিয়ে তাতে একটু দুধ দিয়ে খেতে হবে। একবার খেলেই পেটের যন্ত্রণা কমে যাবে এবং আমাশয় কমে যাবে।

ক্ষুধা ও হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে প্রত্যেকদিন সকালে ২-৩ ফোঁটা পেঁপের আঠা পানিতে মিশিয়ে খেতে হবে। এর দ্বারা ক্ষুধাও বেড়ে যাবে এবং হজমও ঠিকভাবে হবে।

দাদের সমস্যা হলে কাঁচা পেঁপের আঠা আক্রান্ত লাগিয়ে দিতে হবে, একদিন লাগিয়ে পরের দিন লাগাতে হবে না, এরপরের দিন আবার লাগাতে হবে, এইভাবে ৩-৪ দিন লাগালে দাদ মিলিয়ে যাবে।

যে একজিমা শুকনা অথবা রস গড়ায় না, সেখানে ১ দিন অথবা ২ দিন অন্তর পেঁপের আঠা লাগালে ওটার চামড়া উঠতে উঠতে পাতলা হয়ে যায়।

পেট ফাঁপা সমস্যায় কয়েক টুকরো পাকা পেঁপের শাঁস, আর সামান্য লবন এবং একটু গোলমরিচের গুড়ো একসংগে মিশিয়ে খেতে হবে। এর দ্বারা পেট ফাঁপার উপশম করে।

জ্বর হলে দেড় চামচ পেঁপে পাতার রস এক কাপ পানিতে মিশিয়ে খেতে হবে। এর দ্বারা জ্বরের বেগ, বমি, মাথার যন্ত্রনা, শরীরে দাহ কমে যাবে। জ্বর কমে গেলে আর খাওয়ার প্রয়োজন নেই।

মাথায় উঁকুনের সমস্যায় ১ চামচ পেঁপের আঠা, তার সঙ্গে ৭-৮ চামচ পানি মিশিয়ে ফেটিয়ে নিতে হয়। তারপর ওই পানি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখার পর মাথা ধুয়ে ফেলতে হয়।

এভাবে একদিন অন্তর আর একদিন বা ২ দিন লাগালে উঁকুন মরে যায়।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 11 - Rating 4 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)