কোন দিন রোজা রাখলে পূর্ববর্তী এক বছরের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে?

ইসলামিক জ্ঞান 19th Oct 17 at 9:23pm 1,915
Googleplus Pint
কোন দিন রোজা রাখলে পূর্ববর্তী এক বছরের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে?

ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। একজন মানুষের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত এবং প্রতিদিন ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়ার পর, দিন শেষে আবার ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত একটি জীবনের সর্বাঙ্গীণ কল্যাণ কামনাই ধর্মের মূল দর্শন।

ইসলাম মানুষকে যেমন ভালো কাজ ও আমল করার তাগিদ দিয়েছে, তেমন খারাপ কাজ ও মন্দ আমল থেকে বিরত থাকার কথা বলেছে। ইসলামের মতো এমন ভারসাম্যপূর্ণ আর কোনো ধর্ম বা জীবন ব্যবস্থার আর্বিভাব এ ধরাতে ঘটেনি।

আরবী বর্ষপঞ্জী অনুযায়ী ১২ মাসের প্রায় প্রতি মাসেরই কোনো না কোনো বিশেষ দিবস বা দিন রয়েছে এবং সেসব বিশেষ দিবস বা দিনে বিশেষ আমল-ইবাদতের দিক-নির্দেশনা রয়েছে। এছাড়া আরবী ১২ মাসের মাঝে কিছু মাসকে অন্য মাসের তুলনায় সম্মানিত বা বিশেষ বলা হয়েছে। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, আরবী এক বছরে ১২ মাস।

আর এই ১২ মাসের মধ্যে চার মাস বিশেষ তাৎপর্যের অধিকারী। এই চারটি মাসের তিনটি মাস ধারাবাহিকভাবে (অর্থাৎ জিলকদ, জিলহজ ও মহররম) এবং চতুর্থ মাস হলো রজব মাস। (বুখারি, হাদিস নং-৪৬৬২, মুসলিম, হাদিস নং-১৬৭৯)

আরবী ১২ মাসের প্রথম মাস মুহাররম। এই মাসের ১০ তারিখ একটি ঐতিহাসিক দিন। এই দিনটিকে আশুরার দিন বা দিবস বলা হয়। এই দিনে বিশেষ যেসব আমলের কথা ইসলামে বর্ণিত হয়েছে তার মাঝে অন্যতম একটি আমল হলো রোজা রাখা। এই দিন রোজা রাখার ফজিলত ব্যাপক এবং এদিনে রোজা রাখার ব্যাপারে রাসুল (সা.) উৎসাহিত করেছেন।

প্রসিদ্ধ সাহাবি হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘রমজান মাসের রোজা বা সাওমের পর সর্বোত্তম রোজা বা সাওম হলো মহররম মাসের রোজা। (মুসলিম, হাদিস নং-১/৩৬৮)

হজরত আবু কাতাদা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘আশুরার দিনের রোজার ব্যাপারে আমি আল্লাহর কাছে আশাবাদী যে তিনি এর ফলে পূর্ববর্তী এক বছরের গুনাহ মাফ করে দেবেন। (মুসলিম, হাদিস নং-১১৬১, তিরমিজি, হাদিস নং- ৭৪৯)

এই বর্ণনাটি সুনানু ইবনে মাজাহ গ্রন্থের ১৭৩৮ নং হাদিসে এভাবে এসেছে, হজরত আবু কাতাদাহ (রা) থেকে বর্ণিত। নবী করীম (স) ইরশাদ করেন, আমি আশা করি, আশুরা রোজার উসিলায় আল্লাহ তায়ালা অতীতের এক বছরের গুনাহ ক্ষমা করে দেবেন।

রাসূলের (সা.) আদেশের কারণে আশুরার দিন রোজা পালন করা সবার জন্য ওয়াজিব হিসেবে গণ্য হতো। এরপর যখন রমজান মাসের রোজার হুকুম নাজিল হলো, তখন আশুরার রোজার হুকুম ওয়াজিব থেকে সুন্নাতের পর্যায়ে নেমে এলো। এ বিষয়টি সম্পর্কে রাসূল (সা.) বলেছেন, যে চায় সে (আশুরার দিন) রোজা রাখতে পারে এবং (আশুরার দিন রোজা) না রাখলেও ক্ষতি নেই। (সহিহ বোখারি ও মুসলিম)

এছাড়া সর্বাধিক হাদিস বর্ণনাকারী প্রসিদ্ধ সাহাবি হজরত আবু হোরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.)বলেছেন, ‘যদি আমি আগামী বছর বেঁচে থাকি তাহলে আশুরার দিনের সাথে নবম দিনেও অবশ্যই রোজা রাখব। (মুসলিম, হাদীস নং- ২১৫৪) রাসুলের (সা.) এই বর্ণনাটির দ্বারা একথা বোঝা যায় যে, আশুরার দিন শুধু একটি রোজা না রেখে আশুরার দিনের আগে বা পরে আরো একটি রোজা রাখা উচিত। -প্রিয় ইসলাম

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 56 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)