কালো কফির উপকারিতা

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 12th Jul 17 at 6:09pm 128
Googleplus Pint
কালো কফির উপকারিতা

দুধ-চিনি দিয়ে তৈরি কফি কমবেশি সবারই ভালো লাগে। তবে শরীরের কাজে দেয় ‘ব্ল্যাক কফি’।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয় মন ও শরীর ভালো রাখায় কালো কফির গুরুত্ব অনেক। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও পুষ্টি মানে সমৃদ্ধ থাকায় শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

স্মৃতিশক্তি বাড়ায়: বয়স বাড়ার পারকিসন’স এবং আলৎঝাইমার’স রোগের কারণে মানুষের স্মৃতিধারণ ক্ষমতা কমতে থাকে। প্রতিদিন সকালে এক কাপ 'ব্ল্যাক কফি' মস্তিষ্কের কার্যকলাপ ঠিক রাখে। ফলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়। গবেষণায় দেখা গেছে যে, নিয়মিত ব্ল্যাক কফি খাওয়া হলে তা ৬৫ শতাংশ আলৎঝাইমার’স এবং ৬০ শতাংশ পর্যন্ত পারকিসন’স হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

যকৃত সুস্থ রাখে: শরীরের কার্যক্রম পরিচালনায় যকৃতের গুরুত্ব অপরিসীম। ব্ল্যাক কফি যকৃতের ক্যান্সার, হেপাটাইটিস, ফ্যাট ও অ্যালকোহলের কারণে হওয়া যকৃতের নানান সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে। যারা প্রতিদিন চার কাপের বেশি ব্ল্যাক কফি পান করেন তাদের যকৃতজনিত সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি ৮০ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। কফি রক্তে যকৃতের ক্ষতিকর এনজাইম কমাতে সাহায্য করে।

বুদ্ধি বাড়ায়: কফিতে আছে চিত্ত-উত্তেজক, যা শরীরের উপর প্রভাব ফেলে শক্তি, মন, জ্ঞান সম্পর্কীয় কার্যক্রমের উন্নতি ঘটায়।

ওজন কমায়: ব্ল্যাক কফি শরীরের বিপাকের পরিমাণ ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই ব্যায়াম করার ৩০ মিনিট আগে ব্ল্যাক কফি পান করলে ওজন দ্রুত কমে। তাছাড়া কফি পেটের অতিরিক্ত মেদ কমাতেও সাহায্য করে। এছাড়াও স্নায়ুতন্ত্র উদ্দীপিত করে বলে শরীরের ‘ফ্যাট’ কোষ ভাঙতে এবং গ্লাইকোজেনের বিপরীতে শক্তির উত্স হিসেবে কাজ করতে সহায়তা করে। ।

হৃদপিণ্ডের সুস্থতা: নিয়মিত ব্ল্যাক কফি পান করলে অস্থায়িভাবে রক্তচাপ বাড়ালেও সময়ের সঙ্গে আবার ঠিকও হয়ে যায়। দৈনিক দুএক কাপ ব্ল্যাক কফি পান করলে স্ট্রোকসহ বিভিন্ন হৃদযন্ত্রের জটিলতা সমাধানে সাহায্য করার পাশাপাশি প্রদাহের মাত্রা কমাতেও সাহায্য করে।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভালো উৎস: কারণ এতে আছে ভিটামিন বি-টু, বি-থ্রি, বি-ফাইভ, ম্যাঙ্গানিজ, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম।

বয়সের তারুণ্য: চিনি ছাড়া ব্ল্যাক কফি পান করলে মন ও বয়স দুটাই তরুণ রাখে। কফি শরীরে ডোপামিন’য়ের মাত্রা বাড়িয়ে পারকিনসন’স রোগের ঝুঁকি কমায়।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: কফির যৌগিক উপাদান নির্দিষ্ট কিছু ধরনের ক্যানসার যেমন- লিভার, স্তন, কোলন এবং রেক্টাল ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে। কফি প্রদাহ কমায় যা টিউমারের অন্যতম প্রধান কারণ।

মন রাখে ভালো: কারণ কালো কফি 'অবসাদ'য়ের বিরুদ্ধে কাজ করে।

বাত রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে: গবেষণায় দেখা গেছে, যারা দিনে চার কাপের বেশি ব্ল্যাক কফি পান করেন তাদের বাত রোগ হওয়ার সম্ভাবনা ৫৭ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। কফির শক্তিশালী অ্যান্টিওক্সিডেন্ট শরীরের ইন্সুলিন ও ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমিয়ে বাত বা গাউট রোগের ঝুঁকি কমায়। এমনকি বাত রোগ থাকলেও উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 12 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)