জেনে নিন জন্ডিসের কিছু ঘরোয়া প্রতিকার

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 10th Jul 17 at 7:36pm 235
Googleplus Pint
জেনে নিন জন্ডিসের কিছু ঘরোয়া প্রতিকার

যখন রক্তের বিলিরুবিনের মাত্রা অনেক বেশি হয়ে যায় তখন জন্ডিস হয়। এর ফলে ত্বক হলুদ হয়ে যায় এবং চোখ সাদা হয়ে যায়। এছাড়াও শরীর ভীষণ দুর্বল হয়ে যায়, পেটে ব্যথা হয়, ওজন কমে যায়, জ্বর আসে এবং বমি হওয়ার মত লক্ষণগুলোও দেখা যায় জন্ডিস হলে। বিশেষ করে বর্ষার সময় হয়ে থাকে এই রোগ। জিনগত সমস্যার কারণে বিলিরুবিনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও যকৃতের রোগ, দীর্ঘ সময় খাবার না খাওয়া, থাইরয়েডের সমস্যা ইত্যাদি কারণে রক্তের বিলিরুবিনের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে। ভালো খবর হচ্ছে কিছু ঘরোয়া উপায়ে নিয়ন্ত্রণে আনা যায় জন্ডিস। জন্ডিস নিয়ন্ত্রণে আনার প্রাকৃতিক উপায়ের বিষয়ে জেনে নিই চলুন।

১। বার্লি পানি

দৈনিক প্রচুর পরিমাণে বার্লি পানি পান করা পরিপাক তন্ত্রের কাজের উন্নতিতে সাহায্য করে। ৩-৪ লিটার পানিতে ১ কাপ বার্লি মেশান এবং এটিকে ৩ ঘন্টা ফুটতে দিন। নিয়মিত এই দ্রবণটি পান করলে তা জন্ডিসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে সুস্থ হতে সাহায্য করে।

২। আখের রস

আখের রস শুধু ঘন ঘন প্রস্রাব হতেই সাহায্য করে না, বরং যকৃতের স্বাভাবিক কাজে, বিলিরুবিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে এবং পিত্ত রস নিঃসরণেও সাহায্য করে। দিনে ২-৩ বার পান করুন আখের রস। আখের রসের সাথে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে নিলে উপকারিতা পাবেন। তবে অবশ্যই তা বাসায় তৈরি করবেন, রাস্তার আখের রস পান করবেন না।

৩। লেবুর জুস

ক্ষতিগ্রস্থ কোষের মেরামতে সাহায্য করে লেবুর রস। এটি শুধু আপনার জন্ডিস নিরাময়েই সাহায্য করবে না বরং আপনাকে সতেজ হতেও সাহায্য করবে। প্রতিদিন ২-৩ গ্লাস লেবুর জুস পান করলে আপনার রোগ নিরাময়ের প্রক্রিয়ার গতি বৃদ্ধি পাবে।

৪। পেঁপে পাতা ও মধু

পেঁপে যকৃতের সমস্যা নিরাময়ে সাহায্য করে। পেঁপের পাতা এই কাজটি আরো অনেক কার্যকরীভাবে করতে পারে। পেঁপে পাতার পেস্টের সাথে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে পান করলে জন্ডিসের অসুস্থতা থেকে নিরাময় লাভ করতে সাহায্য করবে। মধু যোগ করায় এর স্বাদ বৃদ্ধি পায়। তার পাশাপাশি এর উপাদান যকৃতের জন্যও উপকারী।

৫। আদা

আদার রস খুব একটা সুস্বাদু পানীয় নয়। কিন্তু এটি যকৃৎকে সমস্যা থেকে সুরক্ষা দেয় এবং এর স্বাভাবিক কাজের উন্নতি ঘটায়। আদার রসের সাথে মধু মিশিয়ে দিনে ২-৩ বার পান করুন জন্ডিস থেকে মুক্ত হতে।

৬। মূলার জুস

যকৃৎ এবং পাকস্থলীর জন্য উপকারী মূলা। বিশেষ করে যকৃতের ক্ষেত্রে এটি অনেক বেশি কার্যকরী এর স্বাভাবিক কাজ নিশ্চিত করার জন্য। এছাড়াও বিলিরুবিনের মাত্রাকে স্বাভাবিক পর্যায়ে নিয়ে আসার মাধ্যমে জন্ডিস নিরাময়ে সাহায্য করে মূলার জুস। মূলার রস প্রতিদিন নিয়মিত বিরতিতে পান করলে ইতিবাচক ফল পাওয়া যায়।

৭। গাজরের জুস

ভিটামিন এবং পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ গাজরের জুস খুবই সুস্বাদু। এটি শুধু ডিটক্সিফাই হতেই সাহায্য করে না বরং যকৃতকে পুনরুজ্জীবিত হতেও সাহায্য করে। প্রতিদিন ১ গ্লাস গাজরের জুস পান করা জন্ডিস থেকে নিরাময় লাভ করার প্রক্রিয়াকে আরো গতিময় করে।

৮। যষ্টি মধু

যষ্টিমধু একটি ভালো ডিটক্সিফায়ার। প্রাচীনকাল থেকেই এটি জন্ডিসসহ যকৃতের রোগ নিরাময়ে ব্যবহার হয়ে আসছে। এছাড়াও স্ট্রেস মুক্ত হতেও সাহায্য করে যষ্টিমধু, যা যে কোন রোগ নিরাময়ের জন্য প্রয়োজনীয়। যষ্টিমধুর মূল আপনার প্রিয় কোন পানীয় যেমন- চা বা স্যুপ এর সাথে ফুটিয়ে নিয়ে পান করতে পারেন।

জন্ডিস থেকে নিরাময় লাভ করতে একটু সময়ের প্রয়োজন হয়, তবে উপরে উল্লেখিত প্রতিকারগুলো এই প্রক্রিয়াকে সহজ হতে সাহায্য করে। এছাড়াও প্রচুর পানিও পান করতে হবে জন্ডিস থেকে নিরাময় লাভ করার জন্য।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 12 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)