‘অর্ধেক মানব, অর্ধেক ভেড়া’, গ্রামে আতঙ্ক

ভয়ানক অন্যরকম খবর 24th Jun 17 at 12:48am 2,518
Googleplus Pint
‘অর্ধেক মানব, অর্ধেক ভেড়া’, গ্রামে আতঙ্ক

দক্ষিণ আফ্রিকায় পূর্বাঞ্চলের লেডি ফ্রের গ্রামের মানুষের ভুল কোথায়? সম্প্রতি এখানে জন্ম নেওয়া বিকটদর্শন এক ভেড়াশাবককে তাই ‘শয়তানের দূত’ বলে আখ্যা দিয়েছেন তাঁরা। কারণ সেটি মানবশিশু, নাকি ভেড়াশাবক তা সহজে বোঝার উপায় নেই।

ভেড়াশাবকটির জন্মের পর থেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন গ্রামের চার হাজার বাসিন্দা। জল এতদূর গড়ায় যে তাদের শান্ত করতে একটি বিশেষজ্ঞদল পাঠায় দেশটির গ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।

গ্রামটির একজন বাসিন্দা বলেন, ভেড়াশাবকটিকে শয়তানের পক্ষ থেকে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া তাঁদের জোর বিশ্বাস, মানুষ ও ভেড়ার সম্পর্কের মাধ্যমেই জন্ম হয়েছে ওই শাবকের।

এ বিষয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার পশুচিকিৎসা বিভাগের প্রধান ডা. লুবাবালো মারওয়েবি জানান, জন্মের সময় ওই ভেড়াশাবকটি মারা যায়। তবে মানবশিশুর সঙ্গে মিল থাকলেও, সেটি মানুষের কোনো অংশ নয়।

মারওয়েবি বলেন, “আমরা নিশ্চিত এটা কোনো নকল ছবি না। লেডি ফ্রের গ্রামে মানবশিশুর মতো দেখতে ভেড়াশাবকটি জন্ম নেয়। মা ভেড়াটি হয়তো গর্ভাবস্থায় ‘রিফট ভ্যালি’ জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিল। যার কারণে শাবকটির ওই আকৃতি।”

এদিকে, ওই শাবকের জন্মে মানুষের কোনো হাত থাকতে পারে কি না তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন মারওয়েবি। তিনি জানান, সেটা একেবারেই সম্ভব নয়। কারণ প্রাণীর জন্মের ক্ষেত্রে জীবকোষের ক্রোমোজোমের সংখ্যা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মানুষের শুক্রাণুতে ২৩ জোড়া ক্রোমোজোম থাকে। অপরদিকে ভেড়ার শুক্রাণুতে থাকে ২৮ জোড়া। তাই ওই শাবকের জন্মের জন্য মানুষ দায়ী নয়।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 43 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)