ঈদের আগে ত্বক ও চুলের যত্ন

রূপচর্চা/বিউটি-টিপস 22nd Jun 17 at 5:51pm 462
Googleplus Pint
ঈদের আগে ত্বক ও চুলের যত্ন

ঈদের আর মাত্র কয়েকটি দিন বাকি। অফিস এবং রোযার ফাঁকে ফাঁকে কেনাকাটা প্রায় শেষ অনেকের। এবার পারা নিজেকে একটু সুন্দর ও গুছিয়ে নেয়ার। আজ চেহারার সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে চুল ছাঁটছেন তো কাল মেনিকিওর-পেডিকিওরে ব্যস্ত থাকছেন। অন্যদিন আবার যেতে হচ্ছে ফেসিয়ালের জন্যে। এভাবেই চলছে ঈদের আগ মুহুর্তের প্রস্তুতি। ঈদের দিনটিতে নিজেকে সবচেয়ে সেরা সাজাতে তরুণীদের চলে বিরামহীন পরিশ্রম। কিন্তু একদিনের সাজে সেটা সম্ভব নয়।

তাই ঈদের আগেই নিতে হবে প্রস্তুতি। এ বিষয়ে জেনে নিন কিছু সহজ উপায়।

ত্বকের যত্ন :
সুন্দর ত্বক সৌন্দর্যচর্চার প্রথম কথা। প্রথমেই কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন, এতে ত্বকের রোমকূপ খুলতে সাহায্য করবে। এরপর নিচের ধাপ অনুযায়ী স্ক্রাবিং, মাস্কিং, টোনিং ও ময়শ্চারাইজিং করে নিন।

স্ক্রাবিং ও ক্লিনজিং :
এক চা চামচ সয়াবিন পাউডার, এক চা চামচ চালের গুঁড়া, এক টেবিল চামচ টকদই একত্রে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। পুরো মুখে লাগিয়ে দু-এক মিনিট হালকা ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের জন্য সফ্ট স্ক্রাব হিসেবে কাজ করে।

মাস্কিং :
এক চা চামচ শসা পেস্ট, তিন চা চামচ ওটমিল অথবা জবগুঁড়া, এক চা চামচ টকদই (তৈলাক্ত ত্বকে) বা দুধ (শুষ্ক ত্বকে) এবং এক চা চামচ মধু একত্রে মিশিয়ে মুখে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের গ্লো বা উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

টোনিং :
আধা চা চামচ মধু এবং আধা চা চামচ গুঁড়োদুধ একত্রে মিশিয়ে এক মিনিট মুখে ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বককে টিউন করে ইনস্ট্যান্ট গ্লো দেবে।

ময়শ্চারাইজিং :
দুই চা চামচ মধু এবং এক চা চামচ গোলাপজল একত্রে মিশিয়ে ফ্রিজে রাখুন। প্রতিদিনের ময়শ্চারাইজার হিসেবে এটি ব্যবহার করতে পারেন। মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

এভাবে প্রাকৃতিক উপাদানের স্পর্শে ঈদের দিনটিতে আপনি পেতে পারেন আরো সুন্দর ও দীপ্তিময় ত্বক। এছাড়াও যেকোনো কাজে বাইরে বের হওয়ার সময় অবশ্যই সানস্ক্রিনযুক্ত লোশন বা ক্রিম ব্যবহারের পরামর্শ দেন রূপ বিশেজ্ঞরা। বাসায় ফিরেই ফেসওয়াশ বা ক্লিনজার দিয়ে ভালোমতো মুখ পরিষ্কার করতে হবে।

চুলের যত্ন :
চুল ভালো রাখার প্রধান উপায় চুল পরিষ্কার রাখা। প্রয়োজন হলে প্রতিদিনই চুল শ্যাম্পু করা দরকার। শ্যাম্পু শেষে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে ভুলবেন না। সপ্তাহে দুদিন বা একদিন চুলে যত্ন নিতে হবে।

# ভালোমতো চুলে তেল ম্যাসাজ করে ডিমের সঙ্গে বাটা মসুর ডাল মিশিয়ে চুলে মেখে এক ঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। মাথায় খুশকি থাকলে নিমপাতাবাটা ব্যবহারে উপকার পাওয়া যাবে।

# এক টেবিল চামচ মধু ও দুই টেবিল চামচ অলিভ অয়েল সামান্য গরম করে পুরো চুলে ভালো করে লাগাতে হবে; পরে গরম পানিতে ভেজানো তোয়ালে জড়িয়ে রাখতে হবে। স্কাল্পে বেশি তেল দেয়ার দরকার নেই, কারণ এ সময় এমনিতেই স্কাল্প তেলতেলে থাকে। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। চুলের কন্ডিশনার হিসেবে এই মিশ্রণটি চমৎকার কাজ করে।

# দুই টেবিল চামচ মেথি সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে মিহি পেস্ট বানিয়ে নিন। স্কাল্পে এই পেস্ট লাগিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট। তারপর রিঠা বা শিকাকাই দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

# চুল নিয়মিত ট্রিম করলে স্লিট এন্ডস বা চুলের আগা ফাটার সমস্যা অনেক কমে আসবে। এছাড়া ঈদের আগে অন্তত দুইবার কোনো স্পাতে গিয়ে হেয়ার স্পা অথবা হেয়ার ট্রিটমেন্ট করিয়ে নেয়া যেতে পারে।

#এবার ঈদের দিনটির জন্য প্রয়োজন শুধু একটি মানানসই হেয়ার কাট কিংবা মানানসই হেয়ার কালার। বিশেষ এই দিনটিতে আপনার চুলই হবে সবচেয়ে ঝলমলে এবং সুন্দর।

আর পায়ের যত্নে ঘরে ফিরে গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখতে হবে। তারপর ব্রাশ কিংবা স্টোন বা তোয়ালে দিয়ে পা ঘষে শ্যাম্পু বা সাবান দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এতে পা যেমন সুন্দর থাকবে, তেমনি ক্লান্তিও দূর হবে।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 19 - Rating 4 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)