শান্তি থাকুক অন্তরে

লাইফ স্টাইল 27th May 17 at 12:04am 180
Googleplus Pint
শান্তি থাকুক অন্তরে

কিছুই ভালোলাগে না, অস্থির লাগে সবসময়- এরকম হলে দৈনন্দিন কাজের মাঝেই শান্ত থাকার উপায় রয়েছে।

জীবনযাপন-বিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে প্রতিদিনের কয়েকটি কাজ সম্পর্কে জানা যায় মানসিক শান্তি বজায় রাখতে সাহায্য করে।

বিশ্রাম: মন ও শরীর ভালো রাখতে বিশ্রামের চেয়ে ভালো আর কিছু নেই। দিনে অন্তত আট ঘন্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন। এটি মনসিক শান্তি রক্ষায় চমৎকার কাজ করে।

অলৌকিক পানীয়: গ্রিন টি, জুস বা কোনো স্মুদি নয় কেবল এক গ্লাস পরিষ্কার পানি পানের মাধ্যমে শরীরে সতেজ ভাব আসবে। দৈনিক পানি পানের মাধ্যমে নিজেই এর পার্থক্য অনুভব করতে পারবেন।

যা হচ্ছে তা হতে দিন: অফিসের সহকর্মী বা বাসায় কর্মচারীর কোনো কাজের কারণে বিরক্ত হতে পারেন। ফলে আপনার মানসিক শান্তিও নষ্ট হয়। তাই সচেতনভাবেই যেমনটা হচ্ছে তা হতে দিন। কোনো কিছু নিয়েই খুব বেশি মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই এতে জীবন অনেকটাই সহজ হয়ে যায়।

প্রযুক্তি থেকে দূরে থাকা: প্রযুক্তি থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। সকালে ঘুম থেকে উঠেই প্রথমে মোবাইলকে সময় না দিয়ে নিজেকে সময় দিন। প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা নিজেকে প্রযুক্তি থেকে সরিয়ে রাখুন। মানে কোনো ফোন, মেইল বা সামাজিক যোগাযোগের কোনো মাধ্যম ব্যবহার করবেন না।

কোনো কিছু না করা: মাঝে মধ্যে কোনো কিছু না করেই সময় কাটান। যেমন- বিছানায় শুয়ে উপরের সিলিংয়ের দিকে তাকিয়ে থাকুন, চাইলে কোনো প্রশান্তিমূলক গান শুনতে পারেন। কোনো কাজ, কোনো চিন্তা না করে এক কথায় কোনো কিছু না করেই সময় কাটান।

ধন্যবাদ জ্ঞাপনমূলক চিঠি: কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা খুব সামান্য কাজ হলেও এটি মানুষের মন ভালো রাখতে সাহায্য করে। কাগজে ধন্যবাদমূলক শব্দ লিখে রাখুন যদি তা নিজের কাছেই বাড়াবাড়ি বলে মনে হয় তাহলে প্রতিদিন অন্তত পাঁচজনকে তাদের কাজের জন্য ধন্যবাদ দিন। এতে আপনার মনও ভালো থাকবে।

হাঁটুন: প্রতিদিন খানিকক্ষণ হাঁটার অভ্যাস করুন। কর্মজীবি হলে অফিসে দুপুরের খাওয়ার পর অন্তত ১০ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করা ভালো।

হাসি: মানুষের মন ভালো রাখে। অফিসে বা বাসার সবার সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলুন। আপনার হাসি হয়ত কোনো মানুষের মন এমনকি দিনটাও ভালো করে দিতে পারে।

মৃত্যু সম্পর্কে চিন্তা করুন: সারা পৃথিবীতে ভুটান সবচেয়ে সুখী দেশ হিসেবে পরিচিত। এদেশের সুখের গোপন রহস্য হচ্ছে মৃত্যু সম্পর্কে দিনে অন্তত পাঁচবার চিন্তা করা। শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এটাই সত্যি। দিনে এক মিনিট মৃত্যু সম্পর্কে চিন্তা করলে মানুষ জীবনের প্রকৃত অর্থ সম্পর্কে বাস্তব ধারণা পায়। তখন মানুষ পাপ থেকে বিরত থাকে। ফলে মনে আসে আনন্দ।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 20 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)