দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার নিরাময়ক হতে পারে ‘কফি’

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 13th May 17 at 9:26am 127
Googleplus Pint
দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার নিরাময়ক হতে পারে ‘কফি’

ঘুমস্বল্পতার কারণে শরীরে অনেক ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। অপর্যাপ্ত ঘুমের কারণে মনোযোগের অভাব, স্মৃতিভ্রংশ থেকে শুরু করে বিপাকীয় অনেক রোগের ঝুঁকিও বাড়ে। এর সঙ্গে সম্প্রতি যুক্ত হয়েছে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার বিষয়টি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, স্বল্প ঘুমে শরীর বিভিন্ন ধরনের ব্যথার প্রতি বেশি সংবেদনশীল হয়। ফলে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা নিরাময়ে বিজ্ঞানীরা দিচ্ছেন ‘পর্যাপ্ত ঘুমে’র ব্যবস্থাপত্র। একই সঙ্গে এ ধরনের ব্যথা নিরাময়ে ক্যাফেইনের কথাও বলছেন তারা। খবর সায়েন্সডেইলি।

বোস্টন চিলড্রেন’স হসপিটাল ও বেথ ইসরাইল ডিকনেস মেডিকেল সেন্টারের (বিআইডিএমসি) একদল গবেষক সম্প্রতি একটি গবেষণা চালান। এতে দেখা গেছে, দীর্ঘস্থায়ী ঘুমের সংকটে শরীর বিভিন্ন ধরনের ব্যথার প্রতি বেশি সংবেদনশীল হয়ে পড়ে। এ পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা নিরাময়ে গবেষকরা পর্যাপ্ত ঘুমের পরামর্শ দিয়েছেন। আর তা সম্ভব না হলে তারা পরামর্শ দিয়েছেন ক্যাফেইন গ্রহণের। এ-বিষয়ক গবেষণা নিবন্ধটি নেচার মেডিসিন জার্নালে প্রকাশ হয়েছে।

গবেষক দলে ছিলেন বোস্টন চিলড্রেন’স হসপিটালের পেইন সাইকোলজিস্ট ড. অ্যালবান ল্যাটারমলিয়ের ও বিআইডিএমসির স্লিপ সাইকোলজিস্ট ড. ক্লো আলেকজান্ডার। তারা প্রথমে ব্যথার ওপর ক্ষণস্থায়ী ও দীর্ঘস্থায়ী নিদ্রাস্বল্পতার প্রভাব বিচার করেন। পরে এ ব্যথা নিরাময়ে আইবুপ্রোফেন ও মরফিনের মতো প্রচলিত ওষুধ এবং ক্যাফেইন ও মোডাফিনিলের মতো উদ্দীপকের কার্যকারিতা পরীক্ষা করেন।

গবেষণাটির জন্য বিজ্ঞানীরা ইঁদুরের ওপর পরীক্ষা চালান। এতে ইঁদুরের স্বাভাবিক ঘুমের পর্যায় নিরূপণের জন্য ব্যবহার করা হয় ইলেকট্রোএনসেফালোগ্রাফি (ইইজি) ও ইলেকট্রোমায়োগ্রাফি (ইএমজি)। এর মাধ্যমে পরীক্ষাধীন সব ইঁদুরের স্বাভাবিক মাত্রার ঘুম ও তাদের ব্যথার প্রতি সংবেদনশীলতা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এর পর চাপ প্রয়োগ ছাড়াই পরীক্ষাধীন ইঁদুরগুলোকে জাগিয়ে রাখতে বিভিন্ন ধরনের পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়। এসব পদ্ধতির মধ্যে ছিল— সুতা কাটা, ঘর বানানোসহ ইঁদুরগুলোর পছন্দসই বিভিন্ন কাজ। এভাবে দিনে ১২ ঘণ্টা একটানা কিংবা টানা ৫ দিন ৬ ঘণ্টা করে নির্ঘুম রাখার ব্যবস্থা করা হয়। পাশাপাশি এ সময় তাদের ঘুম ও মানসিক চাপের সঙ্গে যুক্ত হরমোন এবং ব্যথার প্রতি সংবেদনশীলতা পর্যবেক্ষণ করা হয়। এতে দেখা যায়, ঘুমের স্বল্পতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইঁদুরগুলোর মধ্যে ব্যথার প্রতি সংবেদনশীলতা বাড়ছে।

পরে এসব ইঁদুরকে প্রচলিত ব্যথানাশক দেয়া হয়। কিন্তু দেখা যায়, আইবুপ্রোফেন ও মরফিনের মতো প্রচলিত ব্যথানাশক ঘুমের কারণে সৃষ্ট দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার ক্ষেত্রে খুব একটা কাজ করছে না। এসব ওষুধে তাদের ঘুমের স্বল্পতা উল্টো বেড়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে আরেকটি গ্রুপের ইঁদুরকে সরবরাহ করা হয় ক্যাফেইনের মতো উদ্দীপক। এক্ষেত্রে বিস্ময়কর ফল পান বিজ্ঞানীরা। তারা দেখেন, এ ধরনের উদ্দীপক ঘুমের ক্ষেত্রে তেমন কোনো পরিবর্তন আনতে না পারলেও ব্যথা নিরাময়ে ভালো কাজ করছে। বিশেষত এ ধরনের উদ্দীপক ব্যথার প্রতি সংবেদনশীলতা কমানোয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

গবেষকরা জানান, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার সঙ্গে ঘুমের স্বল্পতার গভীর সম্পর্ক রয়েছে। পাশাপাশি এ গবেষণায় এ ধরনের ব্যথা উপশমে প্রচলিত ব্যথানাশকের অকার্যকারিতার তথ্যও উঠে এসেছে। পাশাপাশি উদ্দীপক হিসেবে পরিচিত কিছু উপাদানের ব্যথানাশক হিসেবে কার্যকারিতার তথ্যও এতে উঠে এসেছে। এ সম্পর্ক নিরূপণ চিকিত্সাবিজ্ঞানের জন্য অনেক বড় একটি বাঁকবদল। কারণ এখন আরো বিস্তৃত গবেষণার মাধ্যমে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা নিরাময়ে কার্যকর পন্থা নিরূপণের পথ খুলে গেছে।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 19 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)