পেরেশানিদায়ক কাজকে একটু সহজ করতে...

লাইফ স্টাইল 10th May 17 at 5:22pm 165
Googleplus Pint
পেরেশানিদায়ক কাজকে একটু সহজ করতে...

প্রতিদিনের জীবনে অনেক সময়ই এমন অবস্থার সৃষ্টি হয় যে হাঁপিয়ে উঠি আমরা। পরিস্থিকির কারণে মনে হয়, ইস! দিনটা ৪৮ ঘণ্টায় শেষ হতো! আবার মনে হয়, হাতে আর মিনিট পাঁচেক সময় থাকতো! এমন অহরহ পরিস্থিতি সামলে নিতে গলদঘর্ম হতে হয়। কখনো অলসতা, কখনো সময়ের অভাব আবার কখনো নতুন পরিস্থিতি আপনাকে বিক্ষিপ্ত করে দিতে পারে। এখানে নিন দৈনন্দিন জীবনের বেশ কিছু অস্থির অবস্থা সামলে নেওয়ার কার্যকর কিছু পরামর্শ।

১. যখন সকালে উঠে নাস্তা বানাতে ইচ্ছে করে না

সকালে মিষ্টি স্বাদের কিছু খেতে ভালো লাগে। বিশেষ করে অলস দিনগুলোর জন্য বাড়িতে এনে রাখুন। সিরিয়াল, ফল আর দুধ একটা বাটিতে মিশিয়ে নিন। কিছু চকোলেট দিয়ে দিন। দারুণ মজার আইটেম। রাঁধার ঝামেলা নেই। পেট পুরে খেয়ে আবারো ঝিমোতে থাকুন।

২. এত ব্যস্ত যে গুরুত্বপূর্ণ কোনো বিষয় মনে করতে পারছেন না

এমন সময় আসে যখন কোনো ফালতু কাজে বেশি সময় দিচ্ছেন বা ছোটখাটো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মনে করতে পারছেন না কিংবা অন্য কাজেও মন দিতে ব্যর্থ হচ্ছেন। এসময় একজন সঙ্গী দরকার, কাজের সঙ্গী। আর এর জন্য ভার্চুয়াল অ্যাসিস্টেন্ট দারুণ জাদু দেখাতে পারে। স্মার্টফোনে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্টেন্ট না থাকলে একটা ডাউনলোড করে নিতে পারেন। দিনের যাবতীয় কাজের ফরমায়েশ সেখানে দিয়ে রাখতে পারেন। সময়মতো কোনো ওষুধ খাওয়ার কথাও মনে করিয়ে দেবে এটি।

৩. যখন সকালে কাপড় ইস্ত্রি করার সময়টাই নেই

তড়িঘড়ি করে সকালে ঘুম থেকে উঠে যদি দেখেন বাইরে যাওয়ার পোশাক আয়রন করা নেই, তাহলেই বিপদ। কোঁচকানো শার্টটি উল্টো করে নিন। এবার বিভিন্ন অংশে হাত দিয়ে ঘষতে থাকুন। একটু ঘষার পর আবারো সোজা করে নিয়ে পরে ফেলুন। একটু পর দেখবেন কোঁচকানোভাবে চলে গেছে।

৪. যখন ই-মেইলের ইনবক্স একেবারে যাচ্ছেতাই অবস্থায় রয়েছে

আপনার ইনবক্সকে উপচে দেয় মার্কেটিংয়ের বিভিন্ন ই-মেইল। এদের ফিল্টার করে দিন 'আনসাবস্ক্রাইব' অপশনের ব্যবহারে। এদের অধিকাংশ ই-মেইল আসে সাবস্ক্রাইবের ভিত্তিতে। চটজলদি খুব সহজে ইনবক্স সামলে নেওয়া যাবে এতে।

৫. মিটিংয়ে থাকা খুব জরুরি, কিন্তু প্রায় একই সময় ফ্লাইট

মিটিং শেষ করে যানজট ঠেলে হয়তো ফ্লাইট ধরতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে কি করা? চেষ্টা করে দেখুন মিটিং এড়ানো যায় কিনা। যদি সম্ভব না হয়, তো পরের ফ্লাইটে যাওয়া যায় কিনা দেখুন। যেকোনো একটা উপায় বেরিয়ে আসবে।

৬. যখন পানি বা পানীয় খুব দ্রুত ঠাণ্ডা করা দরকার

বরফের টুকরা দিয়ে বা ফ্রিজে তরল রেখে তা খুব দ্রুত ঠাণ্ডা করা যায় না। কিন্তু আরো সহজ উপায় রয়েছে। একটি তোয়ালে বা পেপার টাওয়েল ভিজিয়ে গ্লাসটা জড়িয়ে ফ্রিজে রেখে দিন। দেখতে দেখতে ঠাণ্ডা হয়ে যাবে গ্লাস।

সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 28 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)