যে তিন ধরনের মানুষকে উপকার করা উচিত নয়!

লাইফ স্টাইল 12th Mar 17 at 4:33pm 548
Googleplus Pint
যে তিন ধরনের মানুষকে উপকার করা উচিত নয়!

ভারতীয় ইতিহাসে ‘চাণক্য নীতি’ আসলে একটি অতি প্রাচীন নৈতিক বিধান। এই শ্লোকগুলির সঙ্গে মৌর্য যুগের রাজনীতিবিদ কৌটিল্য বিষ্ণুগুপ্ত চাণক্যের সত্যিই কোনো সম্পর্ক রয়েছে কি না, তা নিয়ে তর্ক চলতেই পারে। কিন্তু এই নৈতিক কোড- এর প্রাচীনত্ব নিয়ে সংশয় নেই কোন ইতিহাসবিদদের।

কিন্তু ‘চাণক্য নীতি’ হিসেবে পরিচিত নীতিমালায় যা রয়েছে, তার বেশিরভাগই দেশ-কাল নিরপেক্ষ বলে মনে করা হয়। ‘চাণক্য নীতি’ অনেক সময় মিত্র নির্বাচন নিয়ে উপদেশ রেখেছে। সেই সঙ্গে সাবধানও করেছে শত্রু সম্পর্কে। এর সূত্র ধরেই ৩ প্রকারের মানুষের উপকার করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

# অবিশ্বস্ত চরিত্রের নারীদের থেকে শত হাত দূরে থাকতে বলেছে চাণক্য নীতি। এদের উপকার করলে সর্বনাশ আসন্ন। কেউ যদি দয়া পরবশ হয়ে এদের সাহায্য করেন, তাহলে প্রতিদানে এমন কিছু করতে পারে যাতে উপকারি মানুষটির সম্মান বিপন্ন হতে পারে। এ ধরনের নারীর বিপদের শেষ নাই। একবার তার উপকার করলে সে আরো বিপদ নিয়ে হাজির হবে। এছাড়া উপকারীর প্রতিও যে এরা বিশ্বস্ত থাকবে না, সে বিষয়ে নিশ্চিত ‘চাণক্য নীতি’।

# সর্বদা বিমর্ষ থাকে- এমন ব্যক্তির দুঃখ দূর করার চেষ্টা করা কখনই উচিত নয়। ‘চাণক্য নীতি’-র মতে তাদের বিষণ্নতা কোনোদিনই দূর হবে না। এমন লোকের সঙ্গে বেশি মেলামেশা করলে এদের বিষাদ অন্যের মধ্যে প্রবেশ করবে। তাই এ প্রকৃতির মানুষদেরও উপকারের তালিকা থেকে বাদ রাখতে হবে।

# কোনো নির্বোধকে জ্ঞানদানের মতো বৃথাকর্ম আর নেই, একথা স্পষ্ট জানায় ‘চাণক্য নীতি’। কারণ নির্বোধের পক্ষে জ্ঞানের উপলব্ধি কোনও দিনই সম্ভব নয়। বরং তারা তর্ক করে উপকারীর সময় ও মানসিকতা নষ্ট করবে। এদের থেকেও দূরে থাকার কথা বলা হয়েছে চাণক্য নীতিতে।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 39 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)