সফল মানুষদের মনে আসলে কী থাকে? জেনে নিন ৫ বিষয়

লাইফ স্টাইল 30th Jan 17 at 1:10pm 267
Googleplus Pint
সফল মানুষদের মনে আসলে কী থাকে? জেনে নিন ৫ বিষয়

সফল উদ্যোক্তা, জনপ্রিয় নেতা ও ব্যবসায়ী তারকাদের মানসিকতার মিল রয়েছে বলে বের করেছেন বিশেষজ্ঞরা। ভালো মানের আইডিয়া বা ধারণা, মেধা ও দক্ষতার অপূর্ব সমন্বয় দেখা যায় তাঁদের মাঝে।

সফল মানুষদের মনে আসলে কী থাকে?

১. তাঁরা নিজের ভেতরের সেই সত্তাকে আবিষ্কার করেন, যা তাঁদের অপ্রতিরোধ্য করে তোলে। আপনি যে কাজ করেন তাকে নিশ্চিয়ই ভালোবাসেন। জয়ী হতে মানসিক শক্তির সর্বোচ্চ প্রয়োগের প্রয়োজন হয়। আপনার কোন দিকটি অতুলনীয় পারফরম্যান্স দেখাতে সক্ষম তা খুঁজে বের করতে হবে। এর জন্য নিজের ওপর পরীক্ষা চালানো দরকার। মনোবিজ্ঞানীরা বলেন, যখন আপনি দারুণ করেন তখনই মনে হতে পারে এটাই সেরা পারফরম্যান্স। এমনটা ভাবতে ভালো লাগে আমাদের। এই অনুভূতি মানুষের দক্ষতা প্রদর্শনকে নিরবচ্ছিন্ন রাখতে উৎসাহ জোগায়। আপনি কোন বিষয়ের প্রতি আকৃষ্ট এবং কোন গুণের স্ফুরণে অদম্য হয়ে ওঠেন তা বুঝতে ভুল করবেন না।

২. মানসম্পন্ন জীবনযাপনে উৎসাহী থাকেন সফলকামী মানুষ। স্বাস্থ্যকর জীবনই তাঁদের কাম্য। কর্মক্ষেত্রে যাঁরা পারফরম্যান্সের শীর্ষে, সুখ এর মূল কারণ নয়। এর পেছনে কাজ করে কর্ম আদর্শ এবং মূল্যবোধ। মনের মতো করে পছন্দের কাজটি সম্পন্ন করতে চান তাঁরা। আগ্রহ মেটায় তাঁদের কাজ। আর সেখানেই মেলে সুখ। তাই যে কাজে আবেগ উসকে যায়, সেখানেই তৃপ্তি ও সুখ মেলে।

৩. সফল মানুষরাই বোঝেন—যেখানে ব্যর্থতা আসে সেখানেই মেলে পরবর্তী সফলতার মন্ত্র। টপ পারফরমাররা জীবনে কখনো না কখনো নেতিবাচক অবস্থার সম্মুখীন হয়েছেন। কিন্তু তাঁদের মাঝে হতাশা ছেয়ে যেতে পারেনি। যেখানেই ব্যর্থতা দেখা দিয়েছে সেখানেই ঘুরে দাঁড়ানোর মসলা পেয়ে গেছেন তাঁরা। কর্মজীবনের পরিক্রমায় যা ইতিবাচক ঘটেছে, সেখানেই নিজের মূল্য খুঁজে পেয়েছেন। পর্যবেক্ষণের জন্য অতীত আদর্শ স্থান। কিন্তু অবস্থানের জন্য মোটেও ভালো নয়। তাই সেখান থেকে শিক্ষাগ্রহণই জরুরি বলে মনে করেন সফলকামীরা।

৪. অবসাদকে মোটেও পাত্তা দেন না তাঁরা। অথচ এর ভারে সবাই নুয়ে পড়ে ঠিকই। প্রত্যেক মানুষেরই সীমাবদ্ধতা রয়েছে। কিন্তু পরিস্থিতি মেনে নিয়ে যদি এগিয়ে যাওয়ার সাহস থাকে, তো আটকে যাওয়ার কোনো শঙ্কা নেই। চর্চা এবং ক্রমাগত চর্চার মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা নিজেকে সেরা করতে চর্চা চালিয়ে যান। এ ধরনের চর্চা মানুষকে তার সীমা ছাড়িয়ে নিতে সহায়তা করে। নিজেকে ছাড়িয়ে যেতে যেকোনো কাজে দক্ষতা অর্জনে একটানা সময় ও শ্রম দিয়ে যান।

৫. সঠিক আচরণসম্পন্ন মানুষ হয়ে উঠতে সচেষ্ট থাকেন তাঁরা। এ ক্ষেত্রে বহু ইতিবাচক ও নেতিবাচক চিন্তা-চেতনার উদয় ঘটবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রথম সুযোগেই নেতিবাচক চিন্তাগুলোকে মনের জেলখানায় আটকে ফেলুন। এদের বাড়তে দিলে বাগে আনতে বেশ বেগ পেতে হবে। একসময় এরা আপনাকে ডুবিয়ে দেবে। আবার যখন এমন ডুবে যাওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হবে, তখন ইতিবাচক চিন্তাগুলোই আপনাকে বাঁচিয়ে তুলবে।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 20 - Rating 4 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)