একাধিক যৌনসঙ্গী থাকার ৫ ক্ষতিকর দিক

লাইফ স্টাইল 14th Jan 17 at 5:45pm 688
Googleplus Pint
একাধিক যৌনসঙ্গী থাকার ৫ ক্ষতিকর দিক

কিছু মানুষের জন্য একজন সঙ্গী-সঙ্গিনী নিয়ে গোটা জীবন কাটিয়ে দেওয়া খুবই সহজ বিষয় থাকে। কিন্তু সবার জন্য একগামিতা নয়। অনেক মানুষের জন্যই বহুগামিতা স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু বিজ্ঞানের মতে, একাধিক যৌন সঙ্গী-সঙ্গিনীর থাকার ফলে জীবনে বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

বহুগামিতা এমন এক সম্পর্কে জানান যে যেখানে একজন মানুষের দুয়ের অধিক যৌন সঙ্গী-সঙ্গিনী থাকে। তাদের মাঝে পরিষ্কার দেওয়াল বা সীমাহীন সম্পর্ক থাকতে পারে। আরো থাকবে সৎ যোগাযোগব্যবস্থা।

অবশ্য আরো অন্যান্য গবেষণায় বহুগামিতাকে একগামিতার চেয়ে সুবিধাজনক বলে মনে করা হয়। কারণ এ সম্পর্কে কোনো মানুষ তুচ্ছ বিষয়গুলো দ্রুততার সঙ্গে সামলে নেওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলেন এবং সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখতে সচেষ্ট থাকেন।

গত বছর ডেটিং সার্ভিস ওকেকিউপিড একটি সেটিং যোগ করে অ্যাপে। সেখানে বহুগামী সম্পর্কে ইচ্ছুকদের একটি গ্রুপে যোগ দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। অনলাইন অনেক বহুগামী মানুষ তাদের অভিজ্ঞতার বয়ান করেছেন। বিশেষজ্ঞরা কিছু সমস্যার কথা জানিয়েছেন যার সম্মুখীন হয়েছেন বহুগামী মানুষরা।

১. সময় নষ্ট করে: প্রতিদিনের নিয়মিত কাজ, খাওয়া-দাওয়া এবং ঘুম বাদ দিয়ে যে সময়টা হাতে থাকে, তা একাধিক সঙ্গী-সঙ্গিনীর মধ্যে ভাগ করে দেওয়া কঠিন বিষয়। কিংবা যারা বহুগামী তাদের এ কাজের পেছনে দ্বিগুনেরও বেশি সময় দিতে হয়। বহুগামীদের কোনো মোটো থাকলে তা হলো 'ভালোবাসা অসীম, সময় বা শক্তি অসীম নয়'। আর একগামীদের জন্য মোটো হওয়া উচিত 'যোগাযোগ রক্ষা করতে থাকুন'। বহুগামীদের কাছে একটি কথাই শোনা যায়, 'আমি সময় দিতে দিতে হাঁপিয়ে উঠেছি'।

২. অর্থের অভাব তো সমস্যা বেশি: বেশি বেশি সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে সম্পর্ক তো খরচটাও নিঃসন্দেহে বেশি। বেশি জন্মদিনের গিফট, বেশি ঘোরাফেরা, বেশি রেস্টুরেন্টে যাতায়াত ইত্যাদি কারণে পকেট খালি হতে থাকবে। আর অর্থ কম থাকা মানে নানা সমস্যায় জড়িয়ে পড়তে হবে।

৩. স্বাভাবিক নয়: বহুগামিতার অর্থ একাধিক যৌনসঙ্গীর সঙ্গে ক্রমাগত সেক্স করে যাওয়া। এটা কোনো স্বাভাবিক অবস্থা নয়। সাইকোলজি টুডে জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাপত্রে এমন কথাই বলেন ড. ডেবোরাহ আনাপল। যারা একাধিক যৌন সম্পর্কে যুক্ত, তারা নিজেই বহুগামিতা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা রাখেন না। এ ক্ষেত্রে অনেকে মানিয়ে চলতে পারলেও অধিকাংশই নানা জটিলতায় জড়িয়ে পড়েন। যারা সমস্যায় পড়ছেন, তাদের সম্পর্কে দেয়াল তুলে দেওয়া উচিত পরিষ্কারভাবে। তারা কি চান এবং সম্পর্ক নিয়ে কি ধারণা পোষণ করে তার সবই স্পষ্ট করতে হবে। নয়তো জটিলতা কখনো কাটবে না।

৪. বোঝাপড়া কঠিন বিষয়: বহুগামী মানুষদের কোনো বিশেষ গোত্রভুক্ত বলে মনে করা হয় না। যেমনটা সমকামীদের মনে করা হয়। অন্যরা সম্পর্ককে কিভাবে নিচ্ছে তার ওপর নির্ভর করতে হয় বহুগামীদের। এ ক্ষেত্রে নিজস্ব সংস্কৃতি, সমাজ বা নৈতিকতার বাইরেই চলে যেতে হয়।

৫. বেশি দেহ মানেই যৌনবাহিত রোগের বেশি সম্ভাবনা: সাইকোলজি টুডে জার্নালে বহুগামিতা সম্পর্কে লিখেছেন বিশেষজ্ঞ ড. এলিজাবেথ এ শেফ। সেখানে বলেন, একাধিক যৌনসঙ্গীর অর্থ যৌনবাহিত রোগের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাওয়া। এভাবে যৌনসঙ্গীর সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে রোগের সম্ভাবনাও বাড়তে থাকবে। তাই বহুগামীরা মরণঘাতী রোগে আক্রান্ত হতে পারেন। আর যারা বহুগামী তাদের নিজেদের মধ্যে রোগপ্রতিরোধী ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে আলোচনা করে নিতে হবে। নয়তো এটা প্রাণঘাতী হতে পারে যখন তখন।

সূত্র: ইনডিপেনডেন্ট

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 26 - Rating 5 of 10

পাঠকের মন্তব্য (0)